বিভাগ: কি এবং কিভাবে

পৃথিবীর গতি ধীর হয়ে আসা: যখন ২১ ঘণ্টায় একদিন ছিল পৃথিবীতে

নদী মোহনায় তলদেশ জমে থাকায় পলির ভূতাত্ত্বিক বিশ্লেষণ দেখে ৬২০ মিলিয়ন বছর আগে দিনের দৈর্ঘ্য ২১ ঘণ্টা ছিল বলে মনে করা হয়। কেবল ২১ ঘণ্টার দিন নয়, বিজ্ঞানীরা মনে করেন শুরুর দিকে পৃথিবীতে হয়ত ৬ ঘণ্টার দিনও ছিল। পৃথিবীর ঘূর্ণন ধীর হয়ে আসার এ ধারা এখনো চালু আছে। পারমাণবিক ঘড়ির হিসেব অনুযায়ী আধুনিককালে দিনের দৈর্ঘ্য… বাকি অংশ

লিপ সেকেন্ড

৩৫৬ দিনের বছরে একদিন যোগ করা হয় আর বছরটিকে বলা হয় লিপ ইয়ার, দিনটিকে বলা হয় লিপ ডে। এরকম লিপ সেকেন্ডও রয়েছে। বিজ্ঞানীরা যখন প্রয়োজন মনে করেন এক সেকেন্ড যোগ করে দেন এটিই লিপ সেকেন্ড। লিপ ইয়ার বা লিপ ডে কবে হবে সেটি আগে থেকেই নির্ধারিত থাকে কিন্তু লিপ সেকেন্ড কবে হবে তা বলা যায়… বাকি অংশ

লিপ ইয়ার বা অধিবর্ষের কথা

প্রতি চার বছরে একবার ফেব্রুয়ারি মাস ২৯ দিনে ধরা হয় যেটি লিপ ইয়ার নামে পরিচিত আর দিনটিকে বলা হয় লিপ ডে। হিজরি ক্যালেন্ডারের মত চান্দ্রবর্ষ অনুসরণ করে চলা ক্যালেন্ডার প্রকৃতির সাথে তাল মিলিয়ে চলে না। যে কারণে কখনো গ্রীষ্মে আর কখনো শীতে ঈদ উৎসব পালন করতে হয়। কিন্তু সৌরবছরের ক্ষেত্রে এমনটি হয় না। এর কারণ… বাকি অংশ

ভারি পানি বা ভারি জল

এক কথায় সাধারণ হাইড্রোজেন পরমাণুর বদলে হাইড্রোজেনের আরেকটি আইসোটোপ ডিউটেরিয়াম দিয়ে পানির অণু গঠিত হলে তাকে ভারি পানি বলা হয়। অক্সিজেনের একটি পরমাণুর সাথে দু’টি হাইড্রোজেন পরমাণুর সমন্বয়ে পানির অণু তৈরি হয়। হাইড্রোজেনের কোন ধরণের পরমাণু দিয়ে পানি তৈরি হবে সেটি গুরুত্বপূর্ণ। প্রকৃতিতে হাইড্রোজেনের তিন ধরনের পরমাণু বা আইসোটোপ রয়েছে। এগুলো হচ্ছে: প্রোটিয়াম- কেন্দ্র বা… বাকি অংশ

বজ্র নিরোধক দণ্ড

বজ্রপাতের উচ্চ মাত্রার বিদ্যুৎ প্রবাহ অনেক সময় ৪০০ কিলো অ্যাম্পিয়ার ছাড়িয়ে যায়। এত উচ্চমাত্রার বিদ্যুৎ প্রবহের ফলে তাপমাত্রা ৫০,০০০ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা ২৭,৭৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছাতে পারে। এই প্রচণ্ড উত্তাপে আগুণ ধরে যেতে পারে, মানুষসহ জীবজন্তু মারা যেতে পারে। বাড়িঘরের বৈদ্যুতিক সরঞ্জামও বজ্রপাতের ফলে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। বজ্রপাত থেকে বাড়ি-ঘর সুরক্ষিত রাখতে যে ব্যবস্থাগুলো… বাকি অংশ

পৃথিবীর চুম্বকত্ব বা ভূ-চুম্বকত্ব

ষোড়শ শতকের শেষ দিকে বিজ্ঞানীরা লক্ষ্য করেন আমাদের পৃথিবী নিজেই বিশাল একটি চুম্বকের মত আচরণ করে। চুম্বকের বিপরীত মেরু যেমন পরস্পরকে আকর্ষণ করে তেমনি পৃথিবীর মেরু দু’টিও মুক্তভাবে ঝুলে থাকা চুম্বকের মেরু দু’টিকে আকর্ষণ করে। যেন পৃথিবীর ভেতরে বিশাল একটি দণ্ড চুম্বক বসানো রয়েছে। পৃথিবীর এ চৌম্বক ধর্ম জাহাজের নাবিকদের খুব কাজে এসেছিল। তারা চুম্বক… বাকি অংশ

আই প্যাচ বা চোখের পট্টি কি শুধু ক্ষতিগ্রস্ত চোখ ঢাকার জন্য?

উপন্যাসের পাশাপাশি অনেক চলচ্চিত্রেও জলদস্যুদের একটি চোখ এক ধরনের পট্টি দিয়ে ঢাকা দেখানো হয়। এটি কিন্তু আঘাতগ্রস্ত চোখ ঢেকে রাখার জন্য নয়। জলদস্যুদের আই প্যাচ বা চোখের পট্টি ব্যবহারের কারণ জলদস্যুরা ভালো চোখই ঢেকে রাখে বিশেষ সুবিধা নেয়ার জন্য। আমাদের চোখে কতটা আলো প্রবেশ করবে সেটি নির্ধারিত হয় পিউপিল বা তারারন্ধ্রের মাধ্যমে। চারপাশের আলো বেশি… বাকি অংশ

কার্বন-১৪ কি?

অধিকাংশ কার্বন পরমাণুর ক্ষেত্রে ৬টি নিউট্রন ও ৬টি প্রোটন নিয়ে কার্বন পরমাণুর নিউক্লিয়াস তৈরি হয়। তবে প্রায় প্রতি ১০০ কার্বন পরমাণুর ক্ষেত্রে একটি অতিরিক্ত নিউট্রন দেখা যায়। ফলে কার্বন পরমাণুর নিউক্লিয়াসে প্রোটন ও নিউট্রনের মোট সংখ্যা দাঁড়ায় ১৩, ভরও কিছুটা বেশি হয়। তবে ভর বেশি হওয়া ছাড়া কার্বন-১৩ এর রাসায়নিক ধর্ম প্রায় একই রকম হয়,… বাকি অংশ

অপটিক্যাল মাউস কিভাবে কাজ করে?

অপটিক্যাল মাউস কি এবং মেকানিক্যাল মাউসের অসুবিধা আলোক রশ্মি ব্যবহার করে অপটিক্যাল মাউসের নড়াচড়া সংক্রান্ত তথ্য তৈরি করে কম্পিউটারের পাঠানো হয়। পুরনো দিনের মেকানিক্যাল মাউসের ভেতরেও এলইডি ছিল। কিন্তু মাউসের নিচে একটি বল থাকতো যেটির ঘূর্ণনের মাধ্যমে মাউসের নড়াচড়া সংক্রান্ত তথ্য তৈরি করে কম্পিউটারে পাঠানো হত। ময়লা জমে অকার্যকর হয়ে পড়ার কারণে কিছু দিন পর… বাকি অংশ

বজ্রপাত যেভাবে হয়

প্রকৃতির সুন্দরতম আর ভয়াবহতম ঘটনাগুলোর একটি বজ্রপাত। বিদ্যুৎ চমকানোর সময় যে স্ফুলিঙ্গ আমরা দেখি তার তাপমাত্রা সূর্যপৃষ্ঠের তাপমাত্রার চেয়েও বেশি এবং এসময় সৃষ্ট শকওয়েভ চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। বজ্রপাতের সময় বাতাসের মধ্য দিয়ে উচ্চমাত্রার তড়িৎ প্রবাহ বা তড়িৎ ক্ষরণের কারণে স্ফুলিঙ্গ সৃষ্টি হয়। বিদ্যুৎ চমকায় পানিচক্রের কারণে আকাশে বিদ্যুৎ চমকানোর প্রক্রিয়াটি শুরু হয় পানি চক্রের মাধ্যমে।… বাকি অংশ